Your Financial Literacy Starts Here



হোম লোন: মাথার ওপর নিজস্ব ছাদ

Posted: October 31, 2018

মাস শেষ হতেই জামিল সাহেবের মাথায় দুশ্চিন্তা ঘোরাফেরা করতে শুরু করে। কীসের দুশ্চিন্তা? বেতনের বড় একটা অংকই যে তুলে দিতে হবে বাড়িওয়ালার হাতে! জামিল সাহেব মাঝেমধ্যেই ভাবেন, নিজের একটা মাথা গোঁজার ঠাঁই থাকলে বেশ হোত, অন্তত মাস শেষে এতবড় একটা অংকের হাত থেকে নিস্তার পাওয়া যেত। তাছাড়া, মাঝেমধ্যে বেতন পেতেও দেরি হয় তাঁর। সেই মাসগুলোয় বাড়িভাড়ার অংকটা বিশাল একটা বোঝা হয়ে চেপে বসে তাঁর মাথায়।

 

এছাড়াও মাঝেমধ্যে তাঁর মনে হয়, এতগুলো টাকা বাড়িভাড়া বাবদ খরচ না হয়ে গেলে আরেকটু স্বস্তির জীবন কাটাতে পারতেন তিনি, খরচ করার সময় একটু কম হিসেবী হলেও চলতো। কিন্তু নিজের একটা থাকার জায়গা জোটাতে যে টাকাটা প্রয়োজন, তা মধ্যবিত্ত জামিল সাহেব পাবেন কোথায়? এইতো সেদিন জামিল সাহেবের এক সহকর্মী তাঁকে খোজ দিলেন হোম লোনের ব্যাপারে। আপনিও যদি জামিল সাহেবের মতই মধ্যবিত্ত একজন মানুষ হোন, তবে আপনাকে মাথা গোঁজার আশ্রয় করে দিতে ব্যাংকগুলো ব্যবস্থা রেখেছে হোম লোনের। তবে হোম লোন নিয়ে একটি বাড়ির ব্যবস্থা করতে চাইলে কিছু ব্যাপার কিন্তু আপনাকে মাথায় রাখতেই হবে।

 

কী সেই জিনিসগুলো?

 

আগেই নিজের আয়ব্যয় সম্পর্কে ভাল একটা ধারণা নিয়ে নিতে হবে আপনাকে। আপনার মাসিক আয় দিয়ে আপনি প্রতি মাসে বন্ধকী টাকাটা ফেরত দিতে পারবেন কিনা তা আপনার আগেই ভেবে নেয়া  উচিত। বন্ধকী টাকা বলতে কেবল আপনার ধার করা টাকা আর তার উপরে আরোপিত সুদের অংকটিকেই বোঝায় না। আপনি বাড়ির মালিক হলে আপনাকে ট্যাক্স এবং ইন্স্যুরেন্স বাবদও কিছু টাকা খরচ করতে হবে। তাই এসব টাকার পরিমাণ মাথায় রেখেই বাড়ি কেনার সিদ্ধান্ত নিন।

 

কী করে বুঝবেন আপনার বন্ধকী টাকার পরিমাণটা আপনার হাতের নাগালেই আছে? আগেই বলে রাখা ভালো, আপনি বাড়ি কিনতে চাইছেন যাতে আপনার জীবনে কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্য আসে। তাই বন্ধকী টাকাটা যাতে সেই পরিমাণেই থাকে যাতে আপনার দৈনন্দিন জীবন ব্যহত না হয়। বাড়িটি যেহেতু আপনি ব্যাংকের টাকায়ই কিনছেন, আপনার প্রপার্টি তাই ব্যাংকের কাছে দায়বদ্ধ। ব্যাংককে মাসিক টাকাটা ফেরত দিতে গিয়ে আপনার দৈনন্দিন খরচে যদি টান পড়ে, তাহলে বন্ধকী টাকার পরিমাণটা আপনার জন্য বেশিই হয়ে যাচ্ছে।

 

খাবার খরচ, অফিসের যাওয়া আসার খরচ, সন্তানের পড়াশোনার খরচের মত আর যেসব খরচ কমানো একেবারেই অসম্ভব, সেই খরচগুলো করতে যাতে আপনাকে কষ্ট করতে না হয়, তা মাথায় রেখেই লোন নিন। নিজস্ব একটা বাজেট বানিয়ে নিন, সেই অনুযায়ী খরচ নির্ধারণ করুন। আপনাকে যেহেতু প্রতি মাসে একটা নির্দিষ্ট অংকের টাকা ব্যাংককে ফেরত দিতেই হবে, তাই আপনাকে কিছু ক্ষেত্রে খরচ কমাতেই হবে। শখের জিনিসে কম জোর দিয়ে প্রয়োজনীয় জিনিসে মনোযোগ দিন। এতে আপনি অনুমান করতে পারবেন কত টাকা ব্যাংককে মাসিক জমা দেয়ার সামর্থ্য আছে আপনার।

 

হোম লোন নেয়ার সময় কিন্তু আপনি আপনার যত ইচ্ছা তত টাকা লোন নিতে পারবেন না। আপনার আয়ের উপর নির্ভর করেই ব্যাংক নির্ধারণ করবে আপনি সর্বোচ্চ কত টাকা লোন নিতে পারেন। সবসময় যে সেই সর্বোচ্চ পরিমাণ টাকা ধার করাটাই আপনার জন্য বুদ্ধিমানের কাজ, তা কিন্তু নয়! ততটুকুই লোন নিন যতটুকু নিলে আপনি স্বাভাবিকভাবে আপনার দৈনন্দিন জীবনযাপন করতে পারবেন।

 

রিসার্চ বলে, আপনার কখনোই মাসিক আয়ের ৩৬% এর বেশি ধার শোধ করতে খরচ করা উচিত নয়। তাই আগেই মিলিয়ে দেখুন আপনার আয় আর লোনের পরিমাণ সামঞ্জস্যপূর্ণ কিনা। প্রথমবারের মত যারা বাড়ি কেনেন, তাদের মধ্যে বেশির ভাগই ২০% এর বেশি ডাউন পেমেন্ট করতে রাজি থাকেন না। অর্থাৎ আপনার বাড়ির মোট দামের সর্বোচ্চ ২০% টাকা ডাউন পেমেন্ট হিসেবে জমা দিয়ে যদি আপনি বাড়ির মালিকানা পান, তাহলেই কেবল সেই বাড়িটি কিনুন, তা না হলে আপনার ওপর বেশি চাপ পড়ে যেতে পারে। দেখা যাবে তখন অনেক প্রয়োজন মেটাতেই টাকায় টান পড়ে যাচ্ছে।

 

এসব কিছু মাথায় রেখে তবেই নিজের জন্য উপযোগী একটি ব্যাংক থেকে সঠিক পরিমাণ টাকা ধার নিন। লোনের জন্য আবেদন করার মোটামুটি তিনদিনের মাথায় আপনার ব্যাংক আপনাকে একটি লোন এস্টিমেট পাঠিয়ে দেবে। এই এস্টিমেট দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনার মাসিক আয়ের সাথে আপনার মাসিক ধার শোধের কিস্তির টাকা সামঞ্জস্যপূর্ণ আছে কিনা।

 

বারবার সবকিছু নিশ্চিত হয়ে দেখে নিয়ে নিশ্চিত হয়ে তবেই ডিল সাইন করুন। কোন বিষয়ে সন্দেহ কিংবা দ্বিধা থাকলে আপনার ব্যাংকের সাথে কথা বলে তা মিটিয়ে নেয়াই ভালো। আপনার লোন ক্লোজ হবার প্রায় তিন-চারদিনের মধ্যেই আপনার প্রপার্টির মালিকের অ্যাকাউন্টে টাকা জমা হয়ে যাবে, ব্যাংক নিজেই এই ব্যবস্থা নেয়। আর টাকা জমা হয়ে গেলে তো হয়েই গেল, বাড়ির চাবি এখন আপনার!

 

ফাইন্যান্স এবং ব্যাংকিং এর এই যুগে একটি বাড়ির স্বপ্ন পূরণ করা এখন আর কোন অসম্ভব ব্যাপার নয়। শুধু প্রয়োজন আপনার ইচ্ছা আর হোম লোন সম্পর্কে একটু খানি জানাশোনা।

 

হোম লোন সম্পর্কে বিস্তারিত তো জেনেই গেলেন, আপনার নিজের বাড়ি কিনতে লোনের আবেদন তবে কবে করছেন?




Suggested Articles



Social Media Links

social social social